অনলাইন খতিয়ান অনুসন্ধান | অনলাইনে খতিয়ান বের করা

বাংলাদেশ এখন ডিজিটাল উন্নয়নের মহাসড়কে রয়েছে। বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণের পর বাংলাদেশ বিশ্বের অন্যান্য দেশের তুলনায় অর্থাৎ উন্নত দেশের তুলনায় খুব একটা যে পিছিয়ে রয়েছে প্রযুক্তিতে তা কিন্তু নয়। স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ যেকোনো দেশ সহজেই করতে পারেনি। আমাদের দক্ষিণ এশিয়ার তুই একটি দেশ ছাড়া আর অন্য কোন দেশ এই স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ করতে পারেনি।

কিন্তু আমাদের বাংলাদেশ স্বাধীনতার 50 বছরের মধ্যেই বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট বা কৃত্তিম ভূ-উপগ্রহটি উৎক্ষেপণ করেছে। আর এই কারণে বাংলাদেশের অফিস আদালতের অনেক কাজগুলিই এখন অত্যন্ত স্বচ্ছতার সহিত অনলাইনে করা যায়। বাংলাদেশ সরকারের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশকে অবশ্যই উন্নয়নের শেখরে নিয়ে যেতে চায়। এবং সরকারি যে সেবা সমূহ রয়েছে এই সেবা সমূহ জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিতে চায়। আর এরই প্রেক্ষিতে গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের ভূমি মন্ত্রণালয় একটি যুগান্তকারী সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে।

সেই সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ভূমির যত ধরনের সেবা দিতে পারে সরকার কর্তৃক সেই সকল সেবা সমূহ জনগণের কাছে সরাসরি পৌঁছে দেওয়ার লক্ষ্যে ই সেবাসমূহ চালু করেছে। আমাদের বাংলাদেশের জনগণ যদি এই সেবা সমূহ গুলি ভালোভাবে দেখে নিতে পারে বাবু নিতে পারে তাহলে অবশ্যই তারা এই সকল সেবার আওতায় এসে সরকার কর্তৃক প্রদত্ত সেবা সমূহ গ্রহণ করতে পারে।

আজকে আমরা এই ই সেবার আওতায় যে অনলাইনে খতিয়ান দেখা যায় বা খতিয়ান আবেদন করে গ্রহণ করা যায় সেই সম্পর্কে আপনাদেরকে অবগত করাবো। আজকে আপনারা যারা আমাদের এই পোস্টে এসেছেন অনলাইনে কিভাবে খতিয়ান দেখা যায় বা খতিয়ান আপনি সংগ্রহ করতে পারেন এই বিষয়গুলি জানার জন্য। এবং অবশ্যই আপনারা এই বিষয়গুলি সম্পর্কে আজকে অবগত হবেন। কারণ আমরা আপনাদেরকে এই বিষয় সম্পর্কে এখনই দেখানোর চেষ্টা করব।

এছাড়াও আপনারা যদি আমাদের ওয়েবসাইটটি ভিজিট করেন তাহলে জমিজমা সংক্রান্ত অন্যান্য যে বিষয়গুলি রয়েছে সে সকল বিষয়গুলি আপনারা অবশ্যই অবগত হতে পারবেন। কারণ বর্তমান সরকার জনবন্ধু সরকার এই সরকার জনগণের জন্য একেবারে তার সেবা অবশ্যই জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছানোর জন্য বিশেষ সেবা সমূহ চালু করেছেন।

এই সেবা সমূহ যদি তারা ঠিকমতো বুঝে নিতে না পারে তাহলে তাদের কাছে অধরাই থেকে যাবে। কিন্তু সরকার অবশ্যই চায় যে এই সকল সেবা সমূহ জনগণের কাছে পৌঁছাক এবং জনগণের সুফল পাক। কিন্তু আমরা যদি ঠিকমতো বুঝতে না পারি যে কিভাবে এ সকল সেবাসমূহ গ্রহণ করব তাহলে আমরা এই সেবা সমূহ গ্রহণ করতে পারবো না। তাই আজকে এখন আমরা আপনাদেরকে দেখাবো যে অনলাইনে আবেদন করে আমরা কিভাবে খতিয়ান অনুসন্ধান করতে পারি। বাংলাদেশ সরকারের ভূমি মন্ত্রণালয় কর্তৃক একটি ওয়েবসাইট রয়েছে।

সেই ওয়েবসাইটে প্রবেশ করে আমরা অবশ্যই দেখে নিতে পারব আমাদের অনলাইনের আবেদন করার মাধ্যমে। এই কারণে আমরা অনলাইনে ভূমি সেবা ই পর্চা খতিয়ান অনুসন্ধান সম্পর্কে আপনাদেরকে এখন বিস্তারিতভাবে জানাবো। ভূমি মন্ত্রণালয় বাংলাদেশের ভূমি সেবা কে আরো এগিয়ে নিতে বদ্ধপরিকর। এই কারণে তারা ভূমি উন্নয়ন কর, নামজারি, খতিয়ান, ডিজিটাল ল্যান্ড রেকর্ড, আরএস খতিয়ান,

রেন্ট সার্টিফিকেট, ডিজিটাল ল্যান্ড রেকর্ড, বাজেট ব্যবস্থাপনা অভিযোগ প্রতিকার ব্যবস্থাপনা, অ্যাপ ই-বুক অ্যাপ সহ অনলাইনে বিভিন্ন বিষয়ে দেওয়া রয়েছে। তাই প্রথমে আপনাকে অবশ্যই ভূমি মন্ত্রণালয়ের দেওয়া ওয়েবসাইটের ঠিকানায় প্রবেশ করে সেখানে আপনার নিজের নাম স্থায়ী ঠিকানা বর্তমান ঠিকানা এনআইডি নম্বর ইত্যাদি দিয়ে সেই ওয়েবসাইটে গিয়ে আপনার খতিয়ানে সিলেক্ট করে প্রবেশ করুন। এরপর আপনাকে যা যা তথ্য তারা চাইবে সেই তথ্যগুলি প্রদান করে আপনি অবশ্যই আপনার খতিয়ানের অনুসন্ধান করতে পারবেন।

তাই বর্তমান ডিজিটাল বাংলাদেশ আপনি ঘরে বসেই সকল প্রকার সেবা পেয়ে যেতে পারেন শুধুমাত্র একটি স্মার্ট ফোনের মাধ্যমে। এ কারণে আপনাকে অবশ্যই যুগোপযোগী হয়ে গড়ে উঠতে হবে। তা না হলে সরকার চাইলেও এ সকল সেবা সমূহ বাংলাদেশের জনগণ গ্রহণ করতে পারবে না। এ কারণে দেশের প্রত্যেকটি নাগরিককে স্মার্ট নাগরিক হিসেবেই গড়ে উঠতে হবে।